• সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১

দেশের মধ্যে অবকাশে থাকার শীর্ষ ৩ জায়গা

প্রিয় প্রতিবেদন: প্রকাশ ২৮ নভেম্বর ২০২০
এখন পর্যটনের ভরা মৌসুম। সারা বছরের ক্লন্তি দূর করার জন্য  আমাদের  প্রয়োজন একটু অবসর বিনোদনের। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কারণে এ বছরটি সবার জন্যই কঠিন ছিল। তবে সকল দিক বিবেচনায়, বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ তুলনামূলক কম সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে। তবুও, একটি সংক্ষিপ্ত অবসর বছর শেষে যে কারও জন্য বয়ে আনতে পারে ভালো কিছু মুহূর্ত।
চলুন জেনে নেয়া যাক দেশের এমন তিনটি স্থান সম্পর্কে, যেখানে কাটানো যাবে ছুটির একান্ত সময়টুকু।
রেডিসন ব্লু ঢাকা ওয়াটার গার্ডেন
নগর জীবনের কোলাহল এড়িয়ে নিরিবিলি কিছুটা সময় কাটানো যদি আপনার অগ্রাধিকার হয়ে থাকে, তাহলে ঢাকার অন্যতম সেরা হোটেল হিসেবে স্বীকৃত রেডিসন ব্লু ঢাকা ওয়াটার গার্ডেন হতে পারে উপযুক্ত জায়গা। বিলাসবহুল এ হোটেলটিতে ব্যক্তিগত স্যুইট থেকে শুরু করে পরিবার, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে থাকার জন্যও রয়েছে বিকল্প ব্যবস্থা। অবকাশ যাপনের এ সময়টি যদি হয় আপনার শিশু সন্তানকে সাথে নিয়ে, সে জন্যও রয়েছে দারুন সব আয়োজন। রেডিসন ব্লু ঢাকা ওয়াটার গার্ডেনের অন্যান্য সুবিধার মধ্যে রয়েছে তিনটি প্রিমিয়াম রেস্তোরাঁ, হেলথ ক্লাব, সম্মেলন কেন্দ্র, স্পা এবং বড় একটি সুইমিং পুল।
প্রকৃতির আপন সৌন্দর্য না ভেঙে, বরং এর সান্নিধ্যেই গড়ে উঠেছে হোটেলটি। যে কারও দৃষ্টি আকর্ষণ করবে এর স্থাপত্য শৈলীও। এছাড়া, হোটেলে থেকে যদি কেনো কারণে আপনি বিরক্ত হতে শুরু করেন, তাহলে আশপাশে রয়েছে ঘুরে দেখার মতো বেশ কিছু স্থান। বাংলাদেশ আর্মি স্টেডিয়াম এবং আর্মি গল্ফ কোর্সটি এ হোটেল থেকে প্রায় ২০ মিনিটের দূরত্বেই অবস্থিত। তবে শহরের অন্যান্য জনপ্রিয় স্পটগুলোও এখান থেকে খুব বেশি দূরে নয়। অনেক গ্রাহক বিশেষভাবে উল্লেখ করে থাকেন রেডিসনের উচ্চমানের পরিষেবার কথা, যে বিষয়টি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি নগরীর কাছেই শান্ত এবং নিরিবিলি পরিবেশে স্বস্তিদায়ক অবকাশ যাপনের একটি স্থান খুঁজে থাকেন, তাহলে রেডিসন হতে পারে আপনার জন্য উপযুক্ত পছন্দ।
গ্রান্ড ওরিয়েন্টাল হোটেল
অবকাশ যাপন অনেক সময় ব্যয়বহুল হতে পারে এবং বছরের কঠিন এ সময়ে এভাবে অনেকেই টাকা খরচ করতে অনিচ্ছুকও হতে পারেন। তবে তুলনামূলক সাশ্রয়ী মূল্যে আপনি চাইলে সময় কাটাতে পারেন গ্রান্ড ওরিয়েন্টাল হোটেলে। এ হোটেলে সর্বনিম্ন ৫০ ডলার এবং ছাড়ের পর ৯০ ডলার থেকে শুরু করে সবগুলো কক্ষের ভাড়াই বাস্তবসম্মতভাবে নির্ধারণ করা। সীমাবদ্ধতা বোধ না করেই গ্রাহকরা এখানে নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। যেকোনো ধরনের ছুটি শেষ করার আগে আকর্ষণীয় খাবারের একটি পর্বও অপরিহার্য এবং এ ক্ষেত্রেও গ্রাহকদের হতাশ করে না গ্র্যান্ড ওরিয়েন্টাল।
বারবিকিউ ছাড়াও তাদের মেনুতে রয়েছে কন্টিনেন্টাল এবং থাই খাবারের বিশাল সমারোহ। চাহিদা অনুযায়ী যেকোনো সময় খাবার এবং স্ন্যাকস পরিবেশন করার পাশাপাশি ২৪ ঘণ্টাই নিজেদের গ্রাহকদের জন্য অন্য বিভিন্ন পরিষেবা প্রদান করে থাকে গ্রান্ড ওরিয়েন্টাল। অনেক হোটেলের মতো বড় না হলেও, আপনাকে পুরোপুরি একটি বিলাসবহুল অভিজ্ঞতা দিতে পারে গ্র্যান্ড ওরিয়েন্টাল।
দ্য পেনিনসুলা চিটাগাং
দেশের বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামের জিইসি মোড়ে গড়ে উঠেছে এ হোটেলটি, যা শহরের কেন্দ্র থেকে মাত্র পাঁচ মিনিটের দূরত্বে অবস্থিত। চট্টগ্রাম বিমানবন্দর এবং রেলওয়ে স্টেশন থেকেও এ হোটেলের দূরত্ব কম। প্রবেশের পর শুধুমাত্র হোটেল পেনিনসুলার কর্মীরাই নন, এ হোটেলের কক্ষে থাকা ছাদ সমান জানালাগুলোও আপনাকে স্বাগত জানাবে এখানে, যেখান থেকে উপভোগ করা যাবে চট্টগ্রাম নগরীরর অপূর্ব কিছু দৃশ্য। খাবারের আয়োজনেও পিছিয়ে নেই হোটেলটি। দেশি খাবার ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের ভারতীয়, থাই এবং চাইনিজ খাবারের আয়োজন রয়েছে দ্য পেনিনসুলায়।হোটেলটিতে অন্যান্য সুবিধার মধ্যে রয়েছে স্পা, আউটডোর সুইমিং পুল এবং একটি ফিটনেস সেন্টার। অবকাশ যাপন বা অন্য যেকোনো প্রয়োজনে চট্টগ্রামে রাত্রী যাপনের জন্য আপনার পছন্দের তালিকায় থাকতে পারে দ্য পেনিনসুলা হোটেল।

Share :